গাজীপুরে অপহৃত শিশু উদ্ধার, গ্রেপ্তার ৪

104

আকাশ জাতীয় ডেস্ক:

অপহরণের ১৮ ঘণ্টা পর গাজীপুরের বাসন সড়ক এলাকা থেকে সাব্বির হোসেন নামে ৬ বছরের এক অপহৃত শিশুকে উদ্ধার করেছে র‌্যাব। এসময় অপহরণকারী চক্রের চার সদস্যকে গ্রেপ্তার করা হয়।

উদ্ধার শিশু সাব্বির হোসেন সিটি করপোরেশনের বাসন সড়ক এলাকার আবু বকর সিদ্দিকের ছেলে।

গ্রেপ্তাররা হলেন, নেত্রকোনার বেতাতী গ্রামের শামীম, শামীমের স্ত্রী সুমা আক্তার, একই জেলার চয়াহাল গ্রামের নয়ন মিয়া ও নয়নের স্ত্রী সুরাইয়া আক্তার শিউলি।

র‌্যাব-১ এর পোড়াবাড়ি ক্যাম্পের কোম্পানি কমান্ডার আব্দুল্লাহ আল মামুন জানান, গত ১০ মে বাসন সড়ক এলাকার ভাড়াটিয়া আবু বকর ছিদ্দিক এর একমাত্র শিশু সন্তান সাব্বির হোসেন নিজ বাসা থেকে অপহৃত হয়। অপহরণের পর ভিকটিমের পরিবার সম্ভাব্য সকল স্থানে খোঁজাখুঁজি করে না পেয়ে একই দিন রাতে বাসন থানায় একটি অপহরণের মামলা করেন। পরে অপহরণের দিন ভিকটিমের বাবার মোবাইল ফোনে অজ্ঞাতনামা নম্বর থেকে ফোন আসে এবং তার শিশু সন্তান সাব্বির হোসেনকে অপহরণ করা হয়েছে জানিয়ে মুক্তিপণ হিসেবে ৫ লাখ টাকা দাবি করে। এ ঘটনায় অপরাধীদের ধরতে অভিযানে নামে র‌্যাব।

অভিযানের এক পর্যায়ে সোমবার র‌্যাব-১ সদস্যরা গাজীপুর ও রাজধানীর উত্তরার বিভিন্ন এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে মুক্তিপণের টাকা লেনদেনের সময় অপহরণকারী চক্রের মূলহোতা নাজমুল হুদা ওরফে শামীমসহ চারজনকে গ্রেপ্তার করা হয়। পরে তাদের দেয়া তথ্যমতে, রাজধানীর উত্তরা এলাকার একটি ফ্ল্যাটের পরিত্যাক্ত গোপন কক্ষ থেকে মুমূর্ষ অবস্থায় অপহৃত ভিকটিম সাব্বির হোসেনকে উদ্ধার করা হয়।

র‌্যাবের জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেপ্তাররা জানায়, তারা একটি সংঘবদ্ধ অপহরণকারী চক্রের সদস্য। দীর্ঘদিন ধরে গাজীপুরের বিভিন্ন এলাকায় অপহরণ, চুরি ও ছিনতাইসহ নানাবিধ অপরাধমূলক কাজের সাথে জড়িত। তারা পরস্পর যোগসাজসে মুক্তিপণ আদায়ের উদ্দেশ্যে শিশু সাব্বিরকে অপহরণ করেছিল বলে তারা স্বীকার করেছে।

গ্রেপ্তাররা আরো জানায়, পেশায় গার্মেন্টস কর্মী হলেও তাদের দীর্ঘদিনের স্বপ্ন ছিল যেকোন উপায়ে বিপুল টাকা উপার্জন করে গাজীপুর শহরে একটি ফ্ল্যাট বাসা কেনার। তাদের এই স্বপ্ন পূরণ ও আর্থিক লাভবানের জন্য তারা এই অপহরণ করেছে বলে স্বীকার করেছে।