জাফরুল্লাহর জন্য সর্বোচ্চ চিকিৎসার প্রস্তুতি রাখতে বলল ঐক্যফ্রন্ট

516

আকাশ জাতীয় ডেস্ক:  

করোনায় আক্রান্ত গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরীর সুস্থতা কামনা করে তার জন্য দেশের সর্বোচ্চ উন্নত চিকিৎসার ব্যবস্থা রাখার আহ্বান জানিয়েছেন ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতারা। তারা আশা করছেন, জটিল কোনো অবস্থা নয়, মৃদু উপসর্গ নিয়েই ডা. জাফরুল্লাহ সুস্থ হয়ে উঠবেন।

আজ মঙ্গলবার দুপুরে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতারা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরীর রোগমুক্তি কামনা করে গণমাধ্যমে দেওয়া এক বিবৃতিতে এই আশা প্রকাশ করেন।

বিবৃতিতে বলা হয়, নিজের প্রতিষ্ঠান গণস্বাস্থ্য উদ্ভাবিত ‘জি র‍্যাপিড ডট ব্লট’ কিটের পরীক্ষায় ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরীর করোনা শনাক্ত হয়েছে। তার শরীরে করোনার লক্ষণও (জ্বর) আছে। আমরা আশা করি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরীর অসুস্থতা মৃদু উপসর্গের মধ্য দিয়ে শেষ হবে।

কিন্তু এই রোগ কতটা ভয়ঙ্কর হতে পারে সেটা দেশে ও সারা পৃথিবীতে নজির দেখা যাচ্ছে উল্লেখ করে বিবৃতিতে আশংকা করা হয়, তার বয়স এবং অন্যান্য শারীরিক জটিলতা বিবেচনায় নিলে তিনি নিশ্চিতভাবেই খুবই ঝুঁকিপূর্ণ রোগী হিসবে চিহ্নিত হবেন।

বিবৃতিদাতারা বলেন, ‘করোনা রোগীদের চিকিৎসার ক্ষেত্রে নানা রকম অনিয়ম শুরু থেকে দেখা যাচ্ছে যা এখনো চলছে। আমরা আশা করি তার রোগ জটিল হবে না, কিন্তু তেমন পরিস্থিতি হলে যেন এক মুহূর্ত সময়ও নষ্ট না হয় তাকে চিকিৎসা দিতে। সেটা নিশ্চিত করতে তার জন্য দেশের সর্বোচ্চ মানের হাসপাতালে সর্বোচ্চ মানের চিকিৎসা ব্যবস্থা আগে থেকেই প্রস্তুত রাখতে হবে।’

একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা এবং দেশের জন্য কাজ করে যাওয়া মানুষটির এটুকু মনোযোগ রাষ্ট্রের পক্ষ থেকে প্রাপ্য বলে মন্তব্য করেন ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতারা।

গণস্বাস্থ্যের করোনা শনাক্তকরণ কিট প্রসঙ্গে তারা বলেন, ‘গত বেশ কিছুদিন ধরে করোনা শনাক্তকরণ কিটের জন্য অনেক বেশি কাজ করে তিনি (ডা. জাফরুল্লাহ) সংক্রমণের ঝুঁকি অনেক বাড়িয়েছেন, এটা নিশ্চিতভাবেই বলা যায়। অত্যন্ত দুঃখজনক ব্যাপার হচ্ছে, সরকার পদে পদে বাধা সৃষ্টি করে এখনো কিটটি বাজারে আসতে দেয়নি। দেশে সামাজিকভাবে করোনা ছড়িয়ে পড়ার এই সময়ে সরকারি টেস্টের চরম অপ্রতুলতার মধ্যে এই কিট জনগণকে খুবই সাহায্য করতে পারত।’ তারা দ্রুত কিটের পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশ করার দাবি জানান।

অতীতের মতো অসুস্থতার সময়ও জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরীর সঙ্গে থাকবে জানিয়ে এই বিবৃতি দেন জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতা ড. কামাল হোসেন, মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, আ স ম আবদুর রব, ড. আবদুল মঈন খান, মাহমুদুর রহমান মান্না, ড. রেজা কিবরিয়া, অধ্যাপক ড. নুরুল আমিন বেপারী।