ত্রাণ হিসেবে চালের সাথে ডাল না দেওয়ার অভিযোগ

409

আকাশ জাতীয় ডেস্ক:

দেশে করোনাভাইরাস মোকাবেলায় ঢাকার ধামরাইয়ে কর্মহীন, দুস্থ ও প্রতিবন্ধীদের মাঝে বিতরণের জন্য দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয় ৫০ মেট্রিক টন চাল ও ২ লাখ ৫০ হাজার নগদ টাকা প্রদান করেন। এ চালের মধ্যে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা উপজেলার বিভিন্ন গুচ্ছগ্রাম ও আশ্রয়ণ প্রকল্পে বসবাসরতদের মাঝে ২০ মেট্রিক টন চাউল বিতরণ করেন।

আর ১৬টি ইউনিয়নে বিতরণের জন্য চেয়ারম্যানদের মাঝে দেড় মেট্রিক টন চাল বিতরণ করেন। এসময় ওই চালের সাথে আড়াইশ গ্রাম ডাল ও তৈল দেওয়ার সরকারি নির্দেশনা থাকলেও চৌহাট ইউনিয়নের চেয়ারম্যান পারভীন হাসান প্রীতি তা দেননি। এতে ওই ইউনিয়নের ত্রাণ প্রাপ্তরা ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।

তবে চেয়ারম্যান পারভীন হাসান প্রীতি বাংলাদেশ প্রতিদিনকে বলেছেন, তাকে উপজেলা নির্বাহী অফিসার সামিউল হক ও প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মো. শাহিনুজ্জামান শুধু দেড় মেট্রিক টন চালই বরাদ্দ দিয়েছেন, কোন টাকা তাকে প্রদান করেননি। তাই চালের সাথে ডাল-তৈল দেয়া সম্ভব হয়নি। তবে তার নিকট থেকে চেকের একটি পাতায় স্বাক্ষর নিয়েছেন প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিস।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার সামিউল হক বাংলাদেশ প্রতিদিনকে মোবাইল ফোনে জানান, ওই ইউনিয়নের চেয়ারম্যানকে টাকা প্রদান করা হয়েছে। সে কেন উপকারভোগিদের চালের সাথে ডাল দিল না তা আপনি (মানে সাংবাদিক) চেয়ারম্যানকে জিজ্ঞাসা করেন।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মো. শাহিনুজ্জামান জানান, কোন চেয়ারম্যানকেই টাকা দেয়া হয়নি। তবে প্রতি চেয়ারম্যানকেই বলা হয়েছে তারা যেন সরকারের বরাদ্দকৃত চালের সাথে ডাল ও তৈল কিনে দুস্থদের মাঝে বিতরণ করেন। কারণ টাকাটা এখনও ক্যাশ হয়নি। তাই পরের বরাদ্দের সাথে আমরা এ টাকাটা দিয়ে দিব।

ধামরাই সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সাহাব উদ্দিন জানান, সরকারি নির্দেশ মোতাবেক আমি চালের সাথে ডাল কিনে দুস্থ ও কর্মহীনদের মাঝে বিতরণ করেছি।