‘জয় বাংলা টেলিমেডিসিন’ অ্যাপে বিনামূল্য চিকিৎসাসেবা

28

আকাশ আইসিটি ডেস্ক : 

দেশের প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর কাছে মোবাইল অ্যাপের মাধ্যমে চিকিৎসাসেবা পৌঁছে দিতে ‘জয় বাংলা টেলিমেডিসিন অ্যাপ’ অনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করা হয়েছে। অ্যাপ ভিত্তিক টেলিমেডিসিন সেবা শুধুমাত্র বাংলাদেশে নয়, সারা বিশ্বে এই প্রথম।

মঙ্গলবার অনলাইন জুমের মাধ্যমে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের অ্যাপটি উদ্বোধন করেন। ‘জয় বাংলা টেলিমেডিসিন অ্যাপটি’ আওয়ামী লীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক উপকমিটির উদ্যোগে তৈরি করা হয়েছে। ‘জয় বাংলা টেলিমেডিসিন অ্যাপ’ এর মাধ্যমে দেশের মানুষ ভিডিও কলের মাধ্যমে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের কাছ থেকে বিনামূল্যে চিকিৎসাসেবা নিতে পারবেন।

আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য ও উপকমিটির চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. হোসেন মনসুরের সভাপতিত্বে এবং আইইবি’র সহকারী সাধারণ সম্পাদক প্রকৌশলী মো. রনক আহসানের সঞ্চালনায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘বাংলাদেশ প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবেলায় বেশ অভিজ্ঞ হলেও করোনার মতো বৈশ্বিক মহামারি মোকাবেলার অভিজ্ঞতা আমাদের তেমন ছিল না। কারণ নিকট অতীতে বাংলাদেশ এ ধরনের ভয়াবহ মহামারির মুখোমুখি হয়নি। মার্স, সার্স ও ইবোলার মতো মহামারির আঁচ বাংলাদেশে তেমন লাগেনি। পুরা বিশ্বের জন্যই এটি নতুন অভিজ্ঞতা। সমৃদ্ধ দেশগুলোতেও করোনা মোকাবিলা করতে গিয়ে হিমশিম খেয়েছে।’

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘মহামারি করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে বিশ্ব টালমাটাল। বিপর্যস্ত অর্থনীতি থেকে সামাজিক যোগাযোগ ব্যবস্থা ভেঙ্গে পড়েছে। চিকিৎসকরাও নিজে এবং রোগীর কথা বিবেচনা করে এই মহামারি থেকে বাঁচতে চেম্বারে রোগী দেখা অনেকটাই বন্ধ করে দিয়েছিলেন। এ অবস্থায় সময়ের প্রয়োজনে চিকিৎসা সেবায় নতুন ধারার সৃষ্টি হয়েছে। সেটা হলো টেলিমেডিসিন সেবা। শহর থেকে বিশেষজ্ঞ ডাক্তার সারা দেশে এমনকি গ্রামের প্রত্যন্ত অঞ্চলে ইন্টারনেটের মাধ্যমে চিকিৎসা সেবা পৌঁছে দেয়ার যে প্রক্রিয়া এটিই টেলিমেডিসিন নামে পরিচিত। করোনাই মূলত এই পথ দেখিয়েছে। দেশে টেলিমেডিসিন সেবায় কার্যত বিপ্লব ঘটে গেছে। দ্রুতগতির ইন্টারনেট ও নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুতের মাধ্যমে সম্ভব হচ্ছে চিকিৎসাসেবা প্রদান করা। অন্যথায় এই সেবা প্রদান করা সম্ভব হতো না। এই সব কিছু সম্ভব হয়েছে শেখ হাসিনার দুরদর্শী পরিকল্পনা ও বলিষ্ঠ নেতৃত্বের মাধ্যমে।’

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘জয় বাংলা টেলিমেডিসিন অ্যাপ বাংলাদেশের চিকিৎসা খাতে একটি নতুন অধ্যায়। জয় বাংলা টেলিমেডিসিন মোবাইল অ্যাপের মাধ্যমে রোগী ডাক্তারদের সাথে যোগাযোগ করতে পারবে এবং প্রয়োজনীয় চিকিৎসা সেবা গ্রহণ করবে। এই অ্যাপে রোগীদের তথ্য সংরক্ষিত থাকবে ফলে এই তথ্য পরবর্তীতে রোগ নিয়ন্ত্রণে গবেষণার কাজে ব্যবহার করা যাবে।’

আওয়ামী লীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক এবং উপকমিটির সদস্য সচিব প্রকৌশলী মো. আবদুস সবুর বলেন, ‘মহামারি করোনাভাইরাসের শুরুতেই আমরা ‘জয় বাংলা টেলিমেডিসিন অ্যাপ’ নিয়ে কাজ শুরু করি। এই অ্যাপটি বাংলাদেশের চিকিৎসাখাতে একটি নতুন অধ্যায় যুক্ত করবে। ‘জয় বাংলা টেলিমেডিসিন অ্যাপে’র মাধ্যমে রোগীরা চিকিৎকদের সঙ্গে ভিডিও কলের মাধ্যমে যোগাযোগ করতে পারবেন এবং প্রয়োজনীয় চিকিৎসাসেবা নিতে পারবেন। এছাড়াও অ্যাপে ক্যাটাগরি ভিত্তিক বিশেষজ্ঞ ডাক্তারের তালিকা, এপয়েন্টমেন্ট সিস্টেম, মেডিকেল রেকর্ড আপলোড, প্রোফাইল ম্যানেজমেন্ট ইত্যাদি সুবিধা রয়েছে। এছাড়াও অ্যাপে একটি ইন্টারেক্টিভ সোশ্যাল মিডিয়া সংযুক্ত করা হয়েছে। অ্যাপে রোগীদের তথ্য সংরক্ষিত থাকবে, ফলে এই তথ্য পরবর্তীতে রোগ নিয়ন্ত্রণে গবেষণার কাজে ব্যবহার করা যাবে। অ্যাপটি বর্তমানে এন্ড্রয়েড সংস্করণে রয়েছে। আশা করছি খুব শিগগির আইওএস সংস্করণ যুক্ত করতে পারব।’

অ্যাপস উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে আওয়ামী লীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক এবং উপকমিটির সদস্য সচিব প্রকৌশলী মো. আবদুস সবুর, কানাডিয়ান ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশের উপাচার্য অধ্যাপক প্রকৌশলী ড. মোহাম্মদ মাহফুজুল ইসলাম, প্রকৌশলী আবু হাসান মাসুদ উপস্থিত ছিলেন।